May 20, 2018

Check May-18


  1. https://www.physicsforums.com/insights/interview-theoretical-physicist-clifford-johnson/
  2. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pmc/articles/PMC3107299/
  3. https://www.facebook.com/SmallThingBigIdea/?hc_ref=ARSilGLbICQ8Ib027wO8_vnXfZrdjBr-IGUWahetnnvyAHfC9XR2SBWTKWz96EoL1ZM
  4. https://www.oreilly.com/design/free/understanding-design-thinking-lean-and-agile.csp
  5. https://www.doblin.com/ten-types
  6. https://www.brainpickings.org/2013/12/30/on-a-beam-of-light-albert-einstein-radunsky/
  7. http://bigthink.com/philip-perry/the-inside-of-a-proton-could-be-the-most-extreme-environment-in-the-cosmos?utm_campaign=Echobox&utm_medium=Social&utm_source=Twitter#link_time=1526579695
  8. http://library.cern/
  9. http://theconversation.com/how-knowledge-about-different-cultures-is-shaking-the-foundations-of-psychology-92696?utm_campaign=Echobox&utm_medium=Social&utm_source=Facebook#link_time=1520615158
  10. http://www.dummies.com/education/science/physics/string-theory-and-quantum-electrodynamics/
  11. http://www.nybooks.com/daily/2018/02/05/who-killed-more-hitler-stalin-or-mao/
  12. http://www.lekhaka.com/register.php
  13. https://blog.payoneer.com/freelancers/industry-tips-fl/6-countries-capitals-freelancing/
  14. https://blogs.ams.org/beyondreviews/2018/03/20/robert-p-langlands-receives-the-abel-prize/
  15. https://en.wikiversity.org/wiki/Category:Physics
  16. https://photos.google.com/share/AF1QipPCAbqhN5WQvWQ56ZsaaDfyAJ5fjHG6oJ3bs6fUGU1-g-yqYF6VEycpu_agRVvlwA?key=ZzRidzVNeUxmSzhBeU9fNEZGVGdmSWNnR3l6aFBB
  17. https://infinityplusonemath.wordpress.com/2018/02/10/double-for-nothing-part-2/
  18. https://www.google.com/search?q=am+because+we+are+ubuntu&source=lnms&tbm=isch&sa=X&ved=0ahUKEwip_Pilht3aAhUMLo8KHZ9JDwIQ_AUICigB&biw=1280&bih=591#imgrc=vhSGQs-vZO-SFM:
  19. https://www.history.com/news/the-quest-to-decipher-the-rosetta-stone
  20. https://www.quantamagazine.org/mathematicians-measure-infinities-find-theyre-equal-20170912/
  21. https://www.theguardian.com/science/blog/2010/oct/05/mass-higgs-boson
  22. https://plus.maths.org/content/abel-prize-2018-power-asking-good-questions
  23. https://rabbit.org/how-many-rabbits-can-a-rabbit-make/
  24. https://pitt.hosted.panopto.com/Panopto/Pages/Sessions/List.aspx#folderID=%22f25e37f1-524f-47be-8729-bc2a0adff008%22
  25. http://www.pbs.org/wgbh/nova/blogs/physics/2015/10/are-space-and-time-discrete-or-continuous/
  26. https://mehedihaque.blogspot.com/2018/02/blog-post_26.html
  27. https://www.treehugger.com/conservation/running-out-wilderness.html
  28. https://www.zuj.edu.jo/download/fundamental-astronomy-5th-ed-h-karttunen-et-al-springer-2007-ww-pdf/
  29. https://pitt.hosted.panopto.com/Panopto/Pages/Sessions/List.aspx#folderID=%22f25e37f1-524f-47be-8729-bc2a0adff008%22
  30. https://medium.com/@wwnorton/5-things-we-learned-about-physics-from-richard-mullers-quora-session-28edf4ef8be5
  31. https://en.wikipedia.org/wiki/Ubuntu_philosophy

May 13, 2018

সাড়ে বত্রিশ ভাজাসাড়ে বত্রিশ ভাজা by বেলাল চৌধুরী

দাম দিলাম: 4 out of 5 stars





তোর জন্য আকাশ থেকে পেঁজা
এক টুকরো মেঘ এনেছি ভেজা
বৃষ্টি করে এক্ষুণি দে তুই
বৃষ্টি দিয়ে ছাদ বানিয়ে শুই!

গানটার কথা বইতে নেই। কিন্তু এক ভারী বিকেলে বই পড়তে পড়তে মনটা ভালো হয়ে গেছে। অবশ্য আনুষঙ্গিক অন্যান্য ব্যাপার আছে, তবে বইয়ে মেঘের কথা আছে। পেঁজা মেঘের কথা আছে। হয়ত মন ভাল করার জন্য আর আর কিছু অনুরণণের বিষয়ও লুকিয়ে ছিল। কেউ যদি তার শৈশবে বা শৈশব মনের চরিত্রগুলোর সাথে পরিচিত না থাকে তবে প্রথম গল্প গোগোদা'র সঙ্গে উলুলু দেশে গল্পে সে নামগুলো পেয়ে যাবে। আমিই তো এক না-জানা লেখক পেয়ে গেছি। কমলকুমার মজুমদার ছিলেন কিনা লেখকদের লেখক সে আবার কাঠখোদাইও করত! তার খোদাই পানকৌড়ির কথা ভেবে আমিও রোমন্থন করেছি আমার কল্পনায় খোদাই করা কাঠমূর্তিগুলো কবে কবে হারিয়ে গেছে।
মন্ত্র দিয়ে তো আর কাজ হয় না, মন খোদাই তাই যথেষ্ঠ নয়।
বেলাল চৌধুরীর পড়া প্রথম বই। ভারী কোনো গল্প নয়, কিন্তু পড়ে অনেকগুলো দামী জিনিসের ইঙ্গিত পেয়েছি। সেগুলোই বের করে আনতে হবে। Christine Nostlinger এর The Cucumber King বই অবলম্বনে একটা ছবি হয়েছে। ছবিটির নাম এ বইয়ে নেই। আগেই বলেছি এটা তথ্য উপাত্ত পরিবেশনের বই নয়, কিন্তু তথ্য ছেঁকে নিয়ে রসদ বের করা যাবে ভাল ভাল। মুভিটা উদ্ধার করতে হবে ইতিহাস গলে। ছবির পরিচালক হার্ক বোম (Hark Bohm).

ওহ হ্যাঁ, "চিরকালীন গল্পের একটি" সারমর্মটা পড়ার হঠাৎ করে গল্পটি আমার কাছেও অনেক বিস্তৃত হয়ে গেল। হাসিটা দিলাম সারমর্ম পড়ে। না পড়লে খেয়াল করতাম না। অর্ধেক কমলালেবু সহজ গল্পে পুঁজিবাদের কথা বলে দিয়েছে এক ফাঁকে- সিস্টেম লোড!

আমার সকল বইয়ের রিভিউ দেখুন এখানে
[রিভিউ দিয়ে উলটে ফেলিনা, কিন্তু তাও এক একটা রিভিউ বীজের মত মনে হয়। যদি কেউ কখনো সে বীজের খোঁজ পেয়ে যায় তবে না বৃক্ষ হয়ে গেল! ফেলে রাখি, পানি পেলে না বৃক্ষসাধন হবে।]

Apr 28, 2018

অন্ধকারের একশ বছরঅন্ধকারের একশ বছর by Anisul Hoque

My rating: 5 of 5 stars


একশ বছর কত দীর্ঘ, একশ বছরের অন্ধকার কত গভীর অন্ধকারে থাকি বলে হয়ত জানি না!
এত শক্ত বিদ্রুপাত্মক গ্রন্থনা নাড়িয়ে দেয়ার মত। '৯৫ এর বই এখনো তার প্রেক্ষাপট হারায়নি, এখনো সত্য এ ব্যাপারটা কত আচানক! হতে পারত এ একশ বছর বিগত একশ বছর। কিন্তু অবাক করে দিয়ে এ একশ বছর ভবিষ্যতের জন্য ছিল। একশ বছরের অন্ধকার আলো এনে দেবে সে কথাও বলে না। এরপর যা হবে তার জন্য 'অন্ধকার'-ও হয়ত যথেষ্ঠ নয়।
বইয়ের গান এখানে গাই নি। এ বইয়ে গান গাওয়ার কিছু নেই। কৌতুকের অন্তরালে জাতির কিছু বিষাদ লুকিয়ে আছে। বিষাদ যখন লুকিয়ে থাকে তখন সে বিষ মেরে ফেলা যায় না।
অর্থনৈতিক উন্নয়ন হচ্ছে ধরে নিলেও আসলে প্রশ্ন থেকে যায় এ উন্নয়ন কার জন্য। মনের দিক থেকে তো আমরা স্বাধীন হতে পারলাম না। অনেকে জানেই না, হাড়-চর্মের ভেতর যে মন আছে। সে মনের স্বাধীনতা থাকা চিন্তা করার ব্যাপার তো আরেক আরেক ধাপ স্বাধীনতার ব্যাপার। পুরোটা চোখ দিয়ে আকাশ দেখার আনন্দ বুকে ভরে নিয়ে যেন হাঁটি এ দিনের জন্য এগোই। অন্ধকার আছে, থাকবে। কিন্তু দীপ এখনো নিভে নাই, আমরা এখনো বিলীন হই নাই। পৃথিবী এখনো নির্মল, তরুণ।
সাম্প্রদায়িকতা শব্দটা দিয়ে একদিন আমরাই স্টিকার বানাব। প্রাচীন ও অচল শব্দের স্মৃতিতে সচল স্টিকার।



View all my reviews

Nov 23, 2017

কিত্তনখোলা - চলচ্চিত্র রিভিউ

রচয়িতা: সেলিম আল দীন

// যাত্রাদল-বেদে-মেলা-গ্রাম্য প্রভাবশালী-নেশা-অনিবেদনীয় প্রেম-যাত্রার মেয়ের জীবন-বেদেনীর জীবন-পুরুষ-নারীর মোহ //


"আইচ্ছা (রবিদা) একটা ফলের মইধ্যে এত রকমের সোয়াদ কেন? (আমলকি হাতে নিয়ে)
কষ্টা লাগে, চুকা লাগে, নোনতা লাগে আবার বেশি চাবাতি গেলে লাগে তিতা।

-ফলটা তোমার মতো। এক সোয়াদ থেইকা আরেক সোয়াদে লাফাইয়া বেড়ায়। কোনটা যে আসল বোঝা যায় না।"

—মিশে আছে বনশ্রীর বেদনার গাথা।

যাত্রায় পালা করতে বাধ্য বনশ্রীর পা বাঁধা অদৃশ্য সামাজিক শেকলে। পতিতা পল্লীতে ফিরে যেতে চায় না, কিন্তু যাত্রাদল থেকেও পালাবার পথ নেই। অদৃশ্য শেকল!
জবাবদিহিতা থাকে কেবল ডালিমনদের। তাদের ঈশ্বরেরা হয় যাত্রার সাধারণ দর্শকের মত। বিপদ ও আকুতির বার্তা পৌঁছায়, কিন্তু দাওয়াই দেয়ার ক্ষমতা থাকে না।

একে পুরুষ, আবার দুইয়ে অর্থ ও নেতাই ক্ষমতা— ইদুকে দিয়েছে দুশ্চরিত্রের বৈধতা। এরা ঈশ্বর, কারো মৃত্যুও তাদের লক্ষ্য-ব্যবসা-দুনিয়াদারী থেকে বিচ্যুত করে না।

Oct 31, 2017

চার হাজার বইয়ে কয় হাজার পাতা হে বৃটিশ লাইব্রেরী?

আগে কার গুণ গাইব? লাইব্রেরির নাকি ভারতীয় বইয়ের? বস্তুর বিচারে বড় লাইব্রেরি দিয়ে বলি। আমি যখনই লাইব্রেরির কথা বলতে যাই আমাদের দেশের জাতীয় গণগ্রন্থাগারের অনাথ, দুর্বল চিত্র আমার চোখে ভেসে ওঠে। আমি কখনো এই দরিদ্রদশার কথা ভুলতে পারব না। আমাদের এত মানুষ, এত পাকা দালানে ঠাসা শহরে এত ক্ষমতাবান সরকার পোষে যেন এক অর্ধকদাকার বেড়াল। সে কথা আরেকদিন হবে। সুফিয়া কামাল জাতীয় গণগ্রন্থাগার তুমি বড় হও ভেতরে ভেতরে।
বৃটিশ লাইব্রেরি - পৃথিবীর সবচেয়ে বড় জাতীয় গ্রন্থাগার
বৃটিশ লাইব্রেরি দুনিয়ার তাবৎ জাতীয় গ্রন্থাগারের মধ্যে সবচেয়ে বড়। অর্থাৎ বৃটিশ সরকার অন্য যেকোনো দেশের সরকারকে লাইব্রেরি দিয়ে হারিয়ে দিতে পেরেছে। কথাটা খুব বাছাই করা বাক্য হলেও তা আসলে বইয়ের সাথে সরকারের পৃষ্ঠপোষকতার ইচ্ছাশক্তি প্রকাশ করে।


বৃটিশরা উপমহাদেশে প্রভুত্বের কারণে এখানকার সাহিত্য নিয়ে তাদের চর্চা ছিল, তারা তো আর ভারতবর্ষের মত গোঁড়া ছিল না যে ছাই উড়ানোর কষ্ট করতে নারাজ হবে। গত বছরের ডিসেম্বরে 'ইউকে ইন্ডিয়া ইয়ার অব কালচারাল প্ল্যান ফর-২০১৭' পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। উদ্দেশ্য বৃটিশ লাইব্রেরির ১৭১৩ থেকে ১৯১৪ পর্যন্ত সংগৃহীত চার হাজার ভারতীয় প্রিন্টেড বাংলা বইকে ডিজিটাইজ করা। সে ৪ হাজার বইয়ে আছে ৮ লক্ষাধিক পাতা। বাংলা বইয়ের পরিকল্পনাটুকু অবশ্য বড় প্রকল্পের অংশ— টু সেঞ্চুরিজ অব ইন্ডিয়ান প্রিন্ট। এই প্রকল্পে অর্থায়ন করছে 'নিউটন ফান্ড'। এই পাইলট প্রকল্পটি যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব কালচারাল টেক্সটস অ্যান্ড রেকর্ডস, সৃষ্টি ইনস্টিটিউট অব আর্ট, ডিজাইন অ্যান্ড টেকনোলজি এবং লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের SOAS লাইব্রেরির সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে করা হচ্ছে। 

তিনশ বছর আগ থেকে দুইশ বছরের ক্রমিক আয়োজন হতে যাচ্ছে ভারতীয় ইতিহাস, ঐতিহ্য, সমাজ, সাহিত্য নিয়ে গবেষণার খোরাক। দীর্গ সময়ের ব্যবধানে সেগুলো প্রকাশের স্বত্ব হারিয়েছে। আপাতত উইকিসংকলনে ৪০২০টি গ্রন্থভুক্তির কাজ শেষ। আরেকবার বলতে মন চাচ্ছে— ৮ লক্ষাধিক পাতার কাগজ এখন ছবি হয়ে সংকলিত গেছে উইকিসংকলনে। যথাশীঘ্রই ছবিগুলো থেকে ওসিআর, প্রুফ রিডিং, সম্পাদনার কাজ শুরু হয়ে যাবে। 
তারা তৈরি হয়ে যাবে উইকিসংকলনেওর পরিচিত পরিবেশে। 
কিন্তু যে কেউ চাইলে এখনো পড়তে পারে। ছবির পিডিএফে আমরা বই পড়ি না তা তো আর না। 
আমরা হতভাগ্য জাত- সব কিছু সয় আমাদের। শুধু সয় না অভিজাত হয়ে গেলে বইকেও নিজের সাথে অভিজাতশ্রেণীর অঙ্গ মতন ভাবা। 



ভারতীয় ডিজিটাল গ্রন্থাগার থেকে স্ক্যান



আরো পড়ুন ভাল সময় কাটাতে:
http://www.sachalayatan.com/tareqanu/45581
https://bn.wikipedia.org/wiki/জাতীয়_গ্রন্থাগার

Oct 21, 2017

পাঠ পর্যালোচনা - টমাস আলভা এডিসন

টমাস আলভা এডিসনটমাস আলভা এডিসন by শরিফুল ইসলাম ভূঁইয়া
My rating: 3 of 5 stars

এডিসনের ব্যাপারে সমালোচনা করলে এডিসনের কিছু আসবে যাবে না, বরং বাড়িয়ে প্রশংসা করলে সাধারণ মানুষ হতাশ বোধ করতে পারে।
আমি একটি সন্তোষজনক দৃষ্টিভঙ্গি বেছে নিচ্ছি। কেউ যদি বলে সিটভর্তি বাসে দাঁড়িয়ে থাকা যাত্রী ও তার বসার সুযোগ পাওয়ার হিসেব করে একটা যন্ত্র তার ভাড়া কেটে নিবে এমন যন্ত্র বানিয়ে তার পেটেন্ট নিবে তো কারো কি আপত্তি আছে? থাকার কথা নয়। ২৩৩২টি পেটেন্ট ছিল এডিসনের যার মধ্যে ১০৯৩টি যুক্তরাষ্ট্রে। যারা পদার্থবিজ্ঞান পড়ো তাদের বলি, এডিসন আসলে সত্যিকার অর্থে পদার্থবিজ্ঞানী নন, বিজ্ঞানের ভেতর বাস করা একজন ইঞ্জিনিয়ার। তাই ব্যবসা ভাল বোঝা তার দোষ নয়, ইঞ্জিনিয়ার এর সংজ্ঞার চাহিদা থেকেই ব্যবসায়ী কার্যক্রম নৈতিকভাবেও বৈধ।
এডিসন আমাদের কোনো নতুন তত্ব বা জ্ঞান দিয়ে যান নি। তিনি বরং জ্ঞানকে কৌশল বানিয়েছেন— তাও আবার হাজার হাজার কৌশল। তত্ত্ব যাতে কাজে লাগানো যায়, সেজন্যই আমাদের দরকার হয় ইঞ্জিনিয়ারদের। কারণ, তাত্ত্বিকেরা কাজ করেন রহস্য অবমুক্ত করার জন্য, আর প্রকৌশলীরা কাজ করেন রহস্যকে কাজে লাগিয়ে মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়ার জন্য।
আমি চাই কেউ যেন হাজার পেটেন্ট দেখেই আকাশ থেকে পড়ে এডিসনের জন্য আহাজারিতে মরে না যায়। আবার তার অধ্যাবসায়ের ইতিহাসকেও কেউ যেন মূহুর্তের জন্য অসম্মান না করে। আহাজারির অর্থ সে পেরেছে আমি পারব না, আর সম্মানের কারণে তার পথে যে কেউ এগিয়ে যেতে পারবে।
পুরো বইটাতে তার জীবনের এত পর্যায় এল, কিন্তু টেসলার নাম এল না। এ দিক থেকে এডিসন যেমন টেসলার সাথে অবিচার করেছেন, লেখকও এডিসনের প্রতি একটু বাছবিচার করেছেন বলে মনে করি। তবে বইয়ের ক্ষেত্রে এটা হতেই পারে, বই তো আর উইকিপিডিয়া নয় যে ভাল খারাপ সবই থাকতে হবে। বইয়ের উদ্দেশ্য আলোর গল্প করা, কিন্তু সত্যকে ছেড়ে না দেওয়াও নয়। এক খাতিরে মিথ্যা কিছু প্রকাশ না করায় এ দোষ ঘাড় থেকে নেমে যায়।

বিজ্ঞানের সাথে প্রযুক্তির সবচেয়ে বড় বন্ধুত্বটা হল এরা একে অন্যের পরিপূরক। তা কেমন? প্রযুক্তি নিজ থেকে মানুষের কাছে পৌঁছে যায়, কিন্তু নিজ থেকে জন্ম নিতে পারে না। বিজ্ঞান নিজেই জন্ম লাভ করে সত্য, কিন্তু আবার একা একা পৌঁছাতে পারে না বড় জনগোষ্ঠীর কাছে। এই পৌঁছে দেয়ার কাজটা করে প্রযুক্তি।
বিজ্ঞানের নায়কদের বলি বিজ্ঞানী, প্রযুক্তির কারিগরদের বলি উদ্ভাবক।
দুই-ই আমাদের বুদ্ধিমত্তার জয় নির্ধারক।

View all my reviews

Aug 9, 2017

শুভ জন্মদিন, অ্যামেদেও অ্যাভোগ্যাড্রো!

পদার্থবিজ্ঞানকে বলা হয় বিজ্ঞানের পিতা। কিন্তু যতই বাপ হোক না কেন এরও একটা নির্ভরশীলতা আছে— প্রকৃতির সবচেয়ে বিশুদ্ধতম বিষয় গণিতের উপর। প্রকৃতির সবচেয়ে বিস্তর ভাষা পদার্থবিজ্ঞান আর পদার্থবিজ্ঞানের ভাষা হল গণিত। 
আজ একজন মহান বিজ্ঞানীর জন্মদিন। গাণিতিক পদার্থবিজ্ঞানী অ্যামেদেও অ্যাভোগ্যাড্রো, যিনি আমাদের কাছে সবচেয়ে বেশি পরিচিত তার অ্যাভোগ্যাড্রো নীতির জন্য।
অ্যামেদেও অ্যাভোগ্যাড্রো (আগস্ট ৯১৭৭৬ – জুলাই ৯১৮৫৬
তার জন্ম হয়েছিল ১৭৭৬ খ্রিস্টাব্দের ৯ আগস্টে ইতালির তুরিনে। বাবা ছিলেন ম্যাজিস্ট্রেট এবং সিনেটর। তরুণ অ্যাভোগ্যাড্রোও তার বাবার দেখানো পথে আইনে পড়াশোনা ও চর্চা করেন। কিন্তু 'ইতিবাচক দর্শন' এর কাছে ক্রমে আইনের আগ্রহ ক্ষয় পেতে লাগল। এই ইতিবাচক দর্শন (তদানীন্তন নাম) ছিল আসলে গণিত ও পদার্থবিজ্ঞান। পদার্থবিজ্ঞান ও গণিতের জগৎটা তখন অত বড় ছিল না যে পদার্থবিজ্ঞানের উপর নামফলক 'দর্শন' দেখে আমাদের অবাক হওয়া উচিত। তার আগ্রহ দানা বাঁধায় বসে রইল না, এগিয়ে চলল ভৌত রসায়নকে ঘিরে গণিত ও পদার্থবিজ্ঞান পাঠের মধ্য দিয়ে। 
১৮০৩ খ্রিস্টাব্দে এসে অ্যাভোগ্যাড্রো তার প্রথম বৈজ্ঞানিক নিবন্ধ প্রকাশ করলেন লবণাক্ত দ্রবণের বৈদ্যুতিক আচরণের উপর। তিন বছরের মধ্যে আইন ব্যবসা একেবারেই ছেড়েই দিলেন এবং আর গণিত ও পদার্থবিজ্ঞানের পড়ানো শুরু করলেন তুরিনের এক হাইস্কুলে। সম্ভবত বিজ্ঞানের ইতিহাসেই মোর ঘোরার শুরুটা হয়ে গেল। সবচেয়ে ভাল আইনজীবী হয়েও তিনি যা করতে না পারতেন, সবচেয়ে সেরা বিজ্ঞানী না হতে পেরেও তিনি তার চেয়ে বড় কিছু করে ফেলবেন। বিজ্ঞানের শক্তির সামনে দাঁড়ানোর কোনো যুক্তির এত সাহস নেই। 
এদিকে ১৮০৯ সালে তিনি রয়েল কলেজ অব ভার্সেলির সিনিয়র টিচার হয়ে গেলেন। দুই বছর পর ১৮১১য় অ্যাভোগ্যাড্রোর সময় হয়ে গেল বিজ্ঞানের ইতিহাসে অমর হয়ে যাবার। তিনি দিলেন তার সবচেয়ে বড় বৈজ্ঞানিক অবদান, একটি হাইপোথিসিস (প্রকল্প) মাত্র! কিন্তু এই হাইপোথিসিস হিসেব বদলে দিতে লাগল। হাইপোথিসিস থেকে হয়ে গেল অ্যাভোগ্যাড্রো আইন। আবার আইন!— তবে বিজ্ঞানের আইন! নির্ভরতার প্রতীক। 

"একই তাপমাত্রায় এবং একই চাপে সমআয়তন সকল গ্যাসের অণুর সংখ্যা সমান।" 

হাইপোথিসিস একটি বৈজ্ঞানিক প্রস্তাবনা, স্বভাবতই প্রমাণের আগে এটা বিজ্ঞানমহলে দাঁড় করানো কঠিন। অ্যাভোগ্যাড্রো সূত্রের জন্য এক দশক সময় লেগে গিয়েছিল এর গ্রহণযোগ্যতা অর্জনে, তাও অংশত, কারণ তখনকার নামকরা বিজ্ঞানী জন ডাল্টন, জন্স জ্যাকব বার্জেলিয়াস প্রমুখদের তত্ত্বের সাথে না সম্মত হচ্ছিল না এই হাইপোথিসিস। 
১৮২০ খ্রিস্টাব্দে অ্যাভোগ্যাড্রো তুরিন বিশ্ববিদ্যালয়ের গাণিতিক পদার্থবিজ্ঞানের সম্মানজনক অধ্যাপক পদে আসীন হন। কিন্তু, রাজনৈতিক কারণে কয়েক বছর পরেই পদ হারান। পরবর্তীতে বছর দশেক ফারাকে পুনর্বহাল হন এবং ৭৪ বছর বয়স পর্যন্ত আসীন থাকেন। অ্যামেদেও অ্যাভোগ্যাড্রো ৭৯ বছর বয়সে ৯ জুলাই, ১৮৫৬ খ্রিস্টাব্দে মৃত্যুবরণ করেন।
শুভ জন্মদিন, বিজ্ঞানী অ্যামেদেও অ্যাভোগ্যাড্রো!